প্রায় ২ মাস পর স্বপদে বহাল পৌর মেয়র খোকা


মাসুম বিল্লাহ, শেরপুর,  বগুড়া।। বগুড়ার শেরপুর পৌরসভার মেয়র জানে আলম খোকা ও ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফিরোজ আহমেদ জুয়েল ১ মাস ২২ দিন পর স্বপদ ফিরে পেলেন। দুর্নীতির অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় গত ১২ মে তাদেরকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। হাই কোর্টের আদেশের প্রেক্ষিতে তাদেরকে স্বপদে বহাল রাখার আদেশ দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। গত ৩ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব আব্দুর রহমানের স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এই আদেশ দেওয়া হয়।
এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন শেরপুর পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী ও ভারপ্রাপ্ত পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা ফয়জুল ইসলাম। মন্ত্রণালয়ের আদেশের প্রেক্ষিতে ৪ জুলাই  বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২ টায় পৌর মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করেন জানে আলম খোকা সাথে  ফিরোজ আহমেদ জুয়েলও দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার কাউন্সিলরগণ ও গণমাধ্যমকর্মীরা।
ঘটনা সূত্রে জানা যায়, শেরপুর পৌরসভার সান্যালপাড়া এলাকার বাসিন্দা নাজমুল হক লুলু ২০২৩ সালের ১৬ এপ্রিল স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেন। সেখানে তিনি পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ২১টি বিষয়ে অর্থ আত্মসাৎ ও বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয় তুলে ধরেন। বিষয়টি তদন্ত করার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্তে কিছু অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হওয়ায়  তাদেরকে গত ১২ মে সাময়িক বরখাস্ত করে প্যানেল মেয়র নাজমুল আলম খোকনকে ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দেওয়া হয়।
এদিকে জানে আলম খোকা ও ফিরোজ আহমেদ জুয়েলের রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয়ের সাময়িক বরখাস্তের আদেশ ৬ মাসের জন্য স্থগিত রাখে আদালত। সেই সাথে তাদেরকে দায়িত্ব পালনের ব্যবস্থা করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে এই প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রণালয়। দায়িত্ব গ্রহণ করার পর পৌর মেয়র জানে আলম খোকা বলেন, পৌর নাগরিকগণ আমাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করে মেয়রের দায়িত্ব দিয়েছে। কিন্তু একটি মহল ঈর্ষান্বিত হয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনেছে। মহামান্য হাইকোর্টের আদেশে আমি আবার পৌরসভার দায়িত্বে   ফিরে এসেছি এবং জনগণকে সাথে নিয়েই সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করা হবে ইনশাআল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *